1. faysalislam405@gmail.com : ফয়সাল ইসলাম : ফয়সাল ইসলাম
  2. tajul.islam.jalaly@gmail.com : তাজুল ইসলাম জালালি : তাজুল ইসলাম জালালি
  3. marufshakhawat549@gmail.com : মারুফ হোসেন : মারুফ হোসেন
  4. najmulnayeem5@gmail.com : নাজমুল নাঈম : নাজমুল নাঈম
  5. saddam.samad.24@gmail.com : সাদ্দাম হোসাইন : সাদ্দাম হোসাইন
বৃহস্পতিবার, ১১ অগাস্ট ২০২২, ১২:৩৯ অপরাহ্ন

“আশুরা-মুসলমানদের জীবনের এক ভিন্ন অধ্যায়”

ফারজানা আক্তার লিমা 
  • প্রকাশিতঃ শুক্রবার, ২০ আগস্ট, ২০২১
  • ২১৬ বার পড়া হয়েছে
"আশুরা-মুসলমানদের জীবনের এক ভিন্ন অধ্যায়"
"আশুরা-মুসলমানদের জীবনের এক ভিন্ন অধ্যায়"

সময়ের সমষ্টিই জীবন। ব্যাক্তির পৃথিবীতে অবস্থানকালই তাঁর জীবন। কোনো জাতি যে দৈর্ঘ্য জুড়ে পৃথিবীতে অবস্থান করবে, তাকে তার জীবনের আয়ুকাল বলে। তাই সময়ের হিসাব সংরক্ষণ মানে জীবনের হিসাব সংরক্ষণ করা। তাই দিন, মাস আর বছরের হিসাব সংরক্ষণ করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। মহান আল্লাহ তা’লা মানুষকে পৃথিবীতে পাঠানোর আগেই বর্ষপঞ্জি নির্দিষ্ট করে দিয়েছেন।মহান আল্লাহ ইরশাদ করেছেন, “নিশ্চয়ই আকাশমণ্ডলী ও পৃথিবী সৃষ্টির দিন থেকে আল্লাহর বিধানে বছর গণনার মাস বারটি  স্থিরকৃত, তার মধ্যে চারটি নিষিদ্ধ মাস। এটাই সুপ্রতিষ্ঠিত বিধান। “(সূরা তাওবাঃ৩৬)। আশুরা তেমন একটি দিন আর মহররম তেমন একটি মাস যা মুসলমানদের জীবনে এক বড় ভূমিকা পালন করে। 

কারবালার বিষাদময় হত্যাকান্ড মুসলমানদের জীবনে এক বেদনাময় দিন। ৬৮০ খ্রিস্টাব্দের ১০ অক্টোবর কারবালা প্রান্তরে শত্রুপক্ষের বিরাট সৈন্যবাহিনীর সাথে যুদ্ধ করে হোসাইন পরিবারের প্রত্যেকেই শহিদ হন। বীরত্ব ও স্বাধীনতাপ্রিয়তার পরাকাষ্ঠা দেখিয়ে যুদ্ধক্ষেত্রে হোসাইন পরাজিত ও শহিদ হন। কারবালার এ অশ্রুসিক্ত ঘটনার উল্লেখ করে ঐতিহাসিক গীবন মন্তব্য করেন, “সে সুদূর অতীতে ও পরিবেশে হোসেনের  মৃত্যুর বিয়োগান্ত দৃশ্য কঠিনতম পাঠকের হৃদয়েও সহানুভূতি জাগাবে।”

শিয়া সম্প্রদায় আশুরার দিনটিকে শোক হিসেবে পালন করে। কারণ তারা এই দিনে কারবালার প্রান্তরের নির্মম হত্যাকান্ডকে স্মরণ করে তাজিয়া মিছিল করে। শোকপ্রকাশ  করতে গিয়ে গন্ডাদেশ জখম করে, নিজের মাথায় আঘাত করে, নিজের বুকে আঘাত করে। তাদের বিশ্বাস এইভাবে তাঁদের শোক প্রকাশিত হয়। কিন্তু এটি নিছক ইসলামের বিধান লঙ্ঘন ছাড়া কিছুই না।আহলে বাইতের প্রতি ভালোবাসা ইমানের অংশ। কিন্তু  মিছিলের মাধ্যমে এগুলো করা নাটকের মঞ্চায়ন  ছাড়া কিছুই না। এর মাধ্যমে বরং মুসলমানদের অন্তরের ভালোবাসা প্রকাশিত হয় না। আমাদের বুঝতে হবে যে, ভালোবাসা টা অন্তরে। আহলে বাইতের প্রতি ভালোবাসা অবশ্যই দরকার কিন্তু সেটা মিছিলের মাধ্যমে নয়, ইমানের মাধ্যমে

“মহররমের দশ তারিখ শুধু নয় রোধন,
সৃষ্টির্কতায় মহিমায় নিজেরে কর শোধন।     
দুঃখ দিয়ে আল্লাহ বান্দারে করে নিরূপণ, 
আশুরা শোকের পাশে সুখের ও নির্দশন।”
(নূরুল  ইসলাম) 

মুসলমানদের জীবনে আশুরা অনেক  বড় একটি অধ্যায়। আমাদের উচিত আশুরা কে মিছিল দিয়ে উদযাপন না করে,  ইমান দিয়ে আহলে বাইতের জন্য ভালোবাসা জানানো। প্রতিটি মুসলমানদের জীবনে আশুরা হয়ে উঠুক একটি বড় অধ্যায়।

লেখক পরিচিতি
ফারজানা আক্তার লিমা 
গ্রামঃ ছতুরা শরীফ, উপজেলাঃ আখাউড়া, জেলাঃ ব্রাহ্মণবাড়িয়া
প্রতিষ্ঠানঃ জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়, ইংরেজি বিভাগ
মোবাইলঃ 01620652312  
"আশুরা-মুসলমানদের জীবনের এক ভিন্ন অধ্যায়"

বিজ্ঞাপন




Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই সম্পর্কিত আরও
Share via
Copy link
© ২০২২- সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । হক কথা ২৪.নেট
Theme Designed BY Kh Raad ( Frilix Group )
Share via
Copy link