1. faysalislam405@gmail.com : ফয়সাল ইসলাম : ফয়সাল ইসলাম
  2. tajul.islam.jalaly@gmail.com : তাজুল ইসলাম জালালি : তাজুল ইসলাম জালালি
  3. marufshakhawat549@gmail.com : মারুফ হোসেন : মারুফ হোসেন
  4. sheikhmustakikmustak@gmail.com : Sheikh Mustakim Mustak : Sheikh Mustakim Mustak
  5. najmulnayeem5@gmail.com : নাজমুল নাঈম : নাজমুল নাঈম
  6. rj.black.privateboy@gmail.com : rjblack :
  7. saddam.samad.24@gmail.com : সাদ্দাম হোসাইন : সাদ্দাম হোসাইন
  8. samirahmehd1997@gmail.com : Samir Ahmed : Samir Ahmed
বুধবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২১, ০২:৪১ পূর্বাহ্ন

ঘুমানোর সুন্নত ও ফজীলত

সাদ্দাম হোসাইন
  • প্রকাশিতঃ মঙ্গলবার, ২৩ নভেম্বর, ২০২১
  • ১৫ বার পড়া হয়েছে
ঘুমানোর সুন্নত
ঘুমানোর সুন্নত

কর্ম ব্যস্ততার পরে অবসাদ বা বিশ্রাম অত্যান্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। বিশ্রামের প্রধান উপকরণ হলো নিদ্রা বা ঘুম। ঘুম আল্লা হতায়ালার বিশেষ একটি নিয়ামত। এ নিয়ামত থেকে বঞ্চিতরা টের পায় এটা কত বড় একটি নিয়ামত। পবিত্র কুরআনে আল্লাহ বলেন- ( অজাআলনা নাওমাকুম ) আমি তোমাদের ঘুম দিয়েছি অবসাদের জন্য। আল্লাহর এ নিয়ামতের যাথার্থ ক্বদর করতে এ ব্যপারে রাসূল সা.এর আদর্শের যথেষ্টে খেয়াল রাখা দরকার।

১। বর্নিত জিনিসগুলোতে রাসূল সা. শুইতেন এব্ং বসতেন
(ক) খেজুর পাতার মাদুর।
(খ) চাটাই
(গ) কাপড়ের বিছানা।
(ঘ) মাটি ।
(ঙ) চৌকি।
(চ) চামড়া।

২। অযু অবস্থায় ঘুমানো সুন্নত।
৩। শোয়ার আগে বিছানা ঝেড়ে নেওয়া সুন্নত।
৪। শোয়ার আগে কাপড় পরিবর্তন করা সুন্নত।
৫। শোয়ার আগে বিসমিল্লাহ বলে নিচে বর্ণিত কাজগুলো করা সুন্নত-

(ক) ঘরের দরজা বন্ধ করা।
(খ) বাতি নিভিয়ে দেওয়া।
(গ) খাবার বা পানির পাত্র ঢেকে রাখা।
(ঘ) ঢাকার কিছু না থাকলে বিসমিল্লাহ বলে পাত্রের মুখে
একটি শলা বা কাঠি রেখে দেওয়া। (তিরমিযি শরিফ-২/৩)

৬। এশার নামাজের পর গল্প-গুজব করে সজাগ থাকা নিষেধ ।
তবে ওয়াজ -নসীহত অথবা ধর্মীয় বই কিতাব অধ্যয়ন অথবা
একান্ত প্রয়োজনীয়া কোন কাজের জন্য জাগ্রত থাকতে
অসুবিধা নেই।

৭। শোয়ার আগে উভয় চোখে তিনবার করে সুরমা দেওয়া সুন্নত।

৮। ঘুমানোর আগে অন্তত পবিত্র কুরআনের ১০টি আয়াত
তিলাওয়াত করা, এতে সারা রাত ইবাদতের সাওয়াব
পাওয়া যায়।

৯। যে ব্যক্তি শোয়ার আগে আয়াতুল কুরসি পড়ে ঘুমাবে আল্লাহ তার হিফাজতের জন্য একজন ফিরিস্তা নিযুক্ত করে দেন যে সকাল পর্যন্ত শয়তান থেকে তাকে হিফাজতে রাখে।
(বোখারী শরিফ-২৩১১,৩২৭৫,৫০০৮)

১০। ঘুমানোর সময় ডান কাতে কেবলামুখী হয়ে ঘুমানো। উবুড় হয়ে অর্থাৎ বুক নিচের দিকে দিয়ে শোয়া ঠিক নয়। এতে শয়তান আক্রমন করে এবং কিডনীর সমস্যা সৃষ্টি হয় (স্বপ্নদোষ ঘটার সম্ভাবনা)।

১১। রাসূল সা. ঘুমাতে গেলে সূরা ইখলাস সূরা ফালাক ও সূরা নাস পড়তেন। উভয় হাতকে একত্রিত করে ফুঁ দিতেন এবং হস্তদ্বয় সমস্ত শরীরে যতদূর সম্ভব বুলিয়ে দিতেন। এভাবে তিন বার করতেন। এ আমলের উসিলায় অনেক ক্ষতি থেকে হিফাজত থাকা যায়। (বোখারি শরিফ-৫০১৭)

১২। হযরত হুযাইফা রা. থেকে বর্ণিত,যখন রাসূল সা. ঘুমাতে যেতেন, তখন ডান হাত মাথার ডান গালের নিচে রেখে নিচের দোয়া পড়তেন-
اَللَّهُمَّ باسمك اموت واحى
উচ্চারণঃ আল্লাহুম্মা বিসমিকা আমুতু অ-আহইয়া।
অর্থঃ হে আল্লাহ আপনার নামে মুর এবং জিন্দা হই।
(বুখারি শরিফ-৬৩১২, ৫৮৩৭)

বা

এইদোয়া পড়তেন
باسمك رب وضعت جنبى وبك ارفعه، ان امسكت نفسى فاغفرلها، وان ارسلتها فاحفظها بما تحفظ به عبادك الصالحين.
অর্থঃ হে আল্লাহ! আপনারই নামে আমার পার্শ্ব রাখলাম এবং আপনারই নামে তা উঠাব। যদি আপনি আমার আত্মাকে রেখে দেন তাহলে তাকে ক্ষমা করেন। আর যদি আমার আত্মাকে ছেড়ে দেন তাহলে তাকে রক্ষা করুন যা দ্বারা আপনি আপনার বান্দাদেরকে রক্ষা করেন। (বোখারি শরিফ-৭৩৯৩,৫৮৪৫)

১৩। আতঃপর এস্তেগফার পড়া (৩ বার)। (মুসনাদে আহমাদ-১০৬৫২)

ফজীলতঃ

হযরত আবু সাঈদ খুদরী রা. বলেন, রাসূল সা. বলেছেন, যখন কেউ শুতে যায় তখন যদি সে এ এস্তেগফার তিনবার পাঠ করে, তাহলে তার গোনাহ মাফ করে দেওয়া হবে, যদিও তার গোনাহ সমুদ্রের ফেনার সমান হয়, বা বালুর কণা সংখ্যার সমান হয় বা গাছের পাতার সংখ্যা পরিমান হয়। (মুসনাদে আহমাদ-১০৬৫২)
استغفر الله الذي لأ اله الاهوالحي القيوم واتوب ال

উচ্চারণঃ আছতাগফিরুল্লাহাল্লাজি লা-ইলাহা ইল্লাহুয়াল হাইউল
কাইয়ূমু অ-আতুবু ইলাইহ।

অর্থঃ আমি আল্লাহ তায়ালার কাছে মাফ চা্িচ্ছ,যিনি ব্যতিত আর
কোন মাবুদ নেই, তিনি চিরঞ্জিব ও চিরস্থায়ী এবং আমি
তার কাছে তাওবা করছি।

১৪। খারাপ কোন স্বপ্ন দেখলে ঘুম ভাঙ্গার সাথে সাথে তিনটি
কাজ করতে হয়।
১.আউজুল্লিাহি… পুরা পড়তে হয়।
২.বাম দিকে তিন বার থুথু ফেলতে হয়।
৩. র্পাশ্ব বদলিয়ে শুইতে হয়।
(বায়হাকি, হাদিস নং-৪৫৬৯, মুসনাদে আহমাদ-হদিস নং-২১৫৪৭)

১৫। দুপুরে একটু শোয়া সুন্নত। (বোখারী শরিফ)
একে কাইলুলা বলে। দুপুরের খাবারের সাথে এ সুন্নতের কোন সর্ম্পক নেই। খাবার খাওয়া হউক বা না খাওয়া হউক এ সুন্নত আদায় করা যায়।

১৬। শোয়ার সময় এই দোয়া তিন বার পড়া সুন্নত।
رب قنى عذابك يوم تبعث عبادك
উচ্চারণঃ রাব্বি কিনি আজাবাকা ইয়াওমা তাবয়াছু ইবাদাক।

                                                                                                                                                                সূত্র: সুন্নাতী যিন্দিগী

বিজ্ঞাপন




শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই সম্পর্কিত আরও
© ২০২১ - সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । হক কথা ২৪.নেট
Theme Designed BY Kh Raad ( Frilix Group )