1. faysalislam405@gmail.com : ফয়সাল ইসলাম : ফয়সাল ইসলাম
  2. tajul.islam.jalaly@gmail.com : তাজুল ইসলাম জালালি : তাজুল ইসলাম জালালি
  3. marufshakhawat549@gmail.com : মারুফ হোসেন : মারুফ হোসেন
  4. sheikhmustakikmustak@gmail.com : Sheikh Mustakim Mustak : Sheikh Mustakim Mustak
  5. najmulnayeem5@gmail.com : নাজমুল নাঈম : নাজমুল নাঈম
  6. rj.black.privateboy@gmail.com : rjblack :
  7. saddam.samad.24@gmail.com : সাদ্দাম হোসাইন : সাদ্দাম হোসাইন
  8. samirahmehd1997@gmail.com : Samir Ahmed : Samir Ahmed
রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:৩২ অপরাহ্ন

বাড়িতে কেউ আছেন? ‘ভয় নেই, আমি আপনাদের পৌর মেয়র

সাদ্দাম হোসাইন
  • প্রকাশিতঃ সোমবার, ৫ জুলাই, ২০২১
  • ৬৬ বার পড়া হয়েছে
খাদ্য সহায়তা

‘‘বাড়িতে কেউ আছেন? ভয় নাই অনুগ্রহ করে দরজাটা খুলুন, আমি আপনাদের পৌর মেয়র জলিদি। আপনাদের জন্য খাবার নিয়ে এসেছি।’’ নাটোর পৌরসভার মেয়র উমা চৌধুরী জলি এভাবেই রাতের বেলা খাবার ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী নিয়ে হাজির হচ্ছেন মানুষের বাড়ি ।

দেশের এই লকডাউন পরিস্থিতিতে দেশের সব এলাকা স্থবির হয়ে পড়েছে। মানুষের কাজ নাই, খাবার নাই। অসহায় মানুষগুলোর না খেয়ে দিন কাটছে। এমন পরিস্থিতিতে মেয়র উমা চৌধুরী জলি নাটোর পৌরসভার বিভিন্ন এলাকার অসহায় মানুষের দ্বারে দ্বারে গিয়ে রাতের আঁধারে ঘরে ঘরে খাদ্য সহায়তা পৌঁছে দিচ্ছেন।

করোনা দুর্যোগের এমন সময় নাটোরবাসী তাদের মেয়রকে ভিন্নরূপে দেখছেন। দিন নেই, রাত নেই খাদ্য সহায়তা নিয়ে বেড়িয়ে পড়ছেন তিনি। ছুটে চলেছেন মানুষের দুয়ারে দুয়ারে। তাদের দিয়ে আসছেন বিভিন্ন খাদ্য সহায়তা। সরকারি এবং ব্যক্তিগত উদ্যোগে খাদ্য সহায়তার কয়েকদিনের এমন কাজের ধারাবাহিকতায় পরিস্থিতি এমন দাঁড়িয়েছে যে, রাত গভীর হলেই এখন বিপুল সংখ্যক মানুষ মেয়রের জন্য পথে পথে অপেক্ষা করতে থাকেন। ফলে ঝড়-বৃষ্টি উপেক্ষা করেও অপেক্ষমান এসব মানুষের কাছে ছুটে যাচ্ছেন তিনি।

শহরের চৌধুরী বড়গাছা মহল্লার আসমা বেগম বলেন, “আমার স্বামী রিকশা চালান। লকডাউনে কর্মহীন হয়ে পরায় খেয়ে না খেয়ে দিনানিপাত করছিলাম। আমাদের পৌর মেয়র জলি দিদি লকডাউনে আমাদের বাসায় এসে খাদ্য পৌঁছে যাচ্ছে”।

নাটোর পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান চুন্নু জানান, আমাদের পৌর মেয়র করোনার ১৬টি মাস ৯টি ওয়ার্ডে বাড়ি বাড়ি গিয়ে সহায়তা পৌঁছে দিয়েছে। মানুষের বাড়ি-ঘরের বাইরের অবস্থা দেখে অসহায় ও নিম্ন আয়ের মানুষ চিহ্নিত করে সে অনুযায়ী সহায়তা করেছেন। করোনার শুরু থেকে নাটোরে ফ্রন্ট লাইনে থেকে কাজ করে যাচ্ছেন তিনি। এছাড়াও করোনায় আক্রান্ত রোগীদের বাড়িতে নিয়মিত খাদ্য সহায়তা পৌঁছে দিয়েছেন তিনি। শহরবাসীকে সচেতন রাখতে নিয়মিত মাইকিং, বাইসাইকেলযোগে বিভিন্ন স্থান ঘুরে ঘুরে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করেছেন তিনি।

মেয়র উমা চৌধুরী বলেন আমি আমার নিজের মানবিক বোধ থেকেই সম্পূর্ণ ব্যক্তিগত উদ্যোগে এমন কর্মকাণ্ড করে যাচ্ছি। দেশমাতৃকার জন্য কাজ করার শপথ নিয়েই রাজনীতিতে যোগ দিয়েছি। কাজ করতে গিয়ে করোনায় আক্রান্ত হলে হবো, সে নিয়ে চিন্তা করি না। তারপরেও যতটুকু সতর্ক থাকা সম্ভব থাকার চেষ্টা করছি। নিজে আক্রান্ত হওয়ার ভয় করেতো অসহায় মানুষকে সাহায্য করা থেকে এড়িয়ে যেতে পারি না। তাই সাধ্যমতো এই কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাবো”। (ইনশাল্লাহ)

বিজ্ঞাপন





শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই সম্পর্কিত আরও
© ২০২১ - সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । হক কথা ২৪.নেট
Theme Designed BY Kh Raad ( Frilix Group )