● সোমবার, এপ্রিল 22, 2024 | 10:44 অপরাহ্ন

মেহমানদারী

মেহমানদারীর মজার কাহিনী

বার বছর গেল কেটে চেয়ে মেহমান-
ছিল মনে আশা তবুও দিবেন রহমান।
একদা স্বপ্নযুগে এলো ফরমান।
তোমার চাওয়া আমি আদ্য করিব দান।।
আশার কাননে পুষ্প ফুটিল বারটি বছর পর-
নিদ্রা ত্যাগে আল্লাহর গোলাম সাজালো দস্তর।
খাদ্য,পানীয়, শরবত সাজিয়ে আছেন প্রতিক্ষায়-
কখন জানি আল্লাহর পাঠানো মেহমান এসে যায়।
কোত্থেকে এক কুকুর আসিয়া টুটিল নিমকদান-
দৃশ্য দেখিয়া আল্লাহর বান্দাহ বড়ই পেরেশান।
ঢ়ূড়কন্ঠে ধমক মারিয়া হাতে লাঠি নিয়া-
মেহমান আসার অপেক্ষা করছেন কুকুর তাড়িয়া।
দীর্ঘ সময় পথ চেয়ে বসে দীর্ঘ প্রতিক্ষায়-
ক্লান্ত হয়ে পর্শ্বে পাতিত বিচানায় শুয়ে যায়।
তন্দ্রাঘোরে স্বপ্নে এলো এলাহী ফরমান-
মেহমান পেয়ে তুমি কেন করলে অবমান?
হঠাৎ করে ভেঙ্গে গেল গভীর স্বপ্ন তার-
স্বপ্নের কথা মনে পড়তেই হৃদয় ছাড়খাড়।
কেমন করিয়া কখন পাঠালে দাওনা প্রভু বলি-
মেহমান আমি রুখিয়া আনিব যেথায় যাক না চলি।
এই গাঁয়ে এক কুকুর ছিল মনিব ছিল তার–
মাথায় তাহার জখম হলো আঘাতে একবার।

ঘেন্নায় তারে মালিকও আর দেয় না খানা পিনা-
দীর্ঘ দিনের ক্ষুধা সে আর সইতে পারে না।
কুকুর কহিল মনিবরে তুই যতই দুঃখ দিবি-
তারপরেও তোর সেবাতে আমায় কাছে পাবি।
কুকুরের এই ভালবাসা মনিব বুঝল না-
এক মুঠোভাত একফুটা জল তাকে দিল না।
পিয়াস,ক্ষুধায় অস্থির হয়ে বলল আমার কাছে-
তুমি ছাড়া প্রভু এবার আমার কে আর আছে?
তোমার চাওয়া তাহার আরজু যখন মিলে গেল
আমার হুকুম পেয়ে তোমার মেহমান বনে গেল।
লাঠি দেখালে ধমক মারিলে হয় নাকি সম্মান?
এমন করিলে কেমন করিয়া থাকিবে মেহমান?
চিন্তা করে বুঝতে পেরে বান্দাহ পেরেশান-
ছুটে চলল গুটিয়ে নিয়ে সাজানো দস্তরখান।
এদিক ছুটে ওদিক ছুটে অনেক খুঁজার পর-
বহুজনকে জিজ্ঞাসিলে মিলিল খবর।
ক্লান্ত কুকুর শুয়ে ছিল বৃক্ষের ছায়া তলে—
আল্লাহর বান্দাহ খাদ্য দিল দস্তরখানা খুলে।

মুখে খাদ্য নেয়না দেখে বান্দাহ পেরেশান-
আল্লাহ বলেন সোহাগ দিয়ে ভাঙ্গাও অভিমান।

-তাজুল ইসলাম জালালী

এই সম্পর্কিত আরও

আবুল কালাম
বিস্তারিত...
 আরবে ঈদের তারিখ ঘোষণা
বিস্তারিত...
813788_175
বিস্তারিত...
রিসেপ তাইয়েপ এরদোগান
বিস্তারিত...
জান্নাতের ফুল
বিস্তারিত...
কাজী নজরুল ইসলাম
বিস্তারিত...