1. yenboravisluettah@gmail.com : bimak73555 :
  2. faysalislam405@gmail.com : ফয়সাল ইসলাম : ফয়সাল ইসলাম
  3. tajul.islam.jalaly@gmail.com : তাজুল ইসলাম জালালি : তাজুল ইসলাম জালালি
  4. marufshakhawat549@gmail.com : মারুফ হোসেন : মারুফ হোসেন
  5. saddam.samad.24@gmail.com : সাদ্দাম হোসাইন : সাদ্দাম হোসাইন
  6. : :
বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৮:৫৭ পূর্বাহ্ন

রুটিনের বাইরে করা হচ্ছে লোডশেডিং

সাদ্দাম হোসাইন
  • প্রকাশিতঃ বুধবার, ২০ জুলাই, ২০২২
  • ৯৭ বার পড়া হয়েছে
রুটিনের বাইরে লোডশেডিং

জ্বালানি সাশ্রয়ে এলাকাভিত্তিক এক ঘণ্টার লোডশেডিংয়ের রুটিন (সময়সূচি) মানতে পারেনি বিদ্যুৎ বিতরণ কোম্পানিগুলো। বিদ্যুৎ উৎপাদনের ঘাটতি বেড়ে যাওয়ায় রুটিনের বাইরেও লোডশেডিং করতে হচ্ছে। গতকাল মঙ্গলবার ছিল সরকারের পরিকল্পিত লোডশেডিংয়ের প্রথম দিন। এ দিন ঢাকায় কোথাও কোথাও দুই থেকে তিন ঘণ্টা, আর ঢাকার বাইরে চার থেকে পাঁচ ঘণ্টা লোডশেডিং হয়েছে।

বিদ্যুৎ বিতরণ কোম্পানির দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা বলেছেন, রাজধানীর দুটি বিতরণ কোম্পানি ডিপিডিসি ও ডেসকো গতকাল দিনে সর্বোচ্চ ৩০০ মেগাওয়াট করে বিদ্যুৎ ঘাটতি পেয়েছে। কোনো এলাকায় এক ঘণ্টা দিলেও অন্য এলাকায় একটু বেশি লোডশেডিং করতে হয়েছে। ফিডার (একটি বিদ্যুৎ উপকেন্দ্রের আওতাধীন এলাকা) ধরে লোডশেডিংয়ের রুটিন করা হলেও ডিপিডিসি ও ডেসকো তা মানতে পারছে না।

ঢাকার চেয়ে ঢাকার বাইরেই লোডশেডিংয়ের রুটিন না মানার ঘটনা বেশি ঘটছে। রংপুরে এক ঘণ্টা লোডশেডিংয়ের পর বিদ্যুৎ এলেও আধা ঘণ্টা পর আবার বিদ্যুৎ চলে যাচ্ছে। গতকাল শহরের মুন্সিপাড়া ফিডারের আওতাধীন প্রায় ১২টি এলাকায় বিকেল চারটা থেকে পাঁচটা পর্যন্ত লোডশেডিং হওয়ার কথা ছিল। তবে সকাল থেকেই ওই এলাকাগুলোতে কয়েক দফা লোডশেডিং হয়েছে।

সকাল ৮টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত শহরের কাছারি বাজার ও এর আশপাশের এলাকায় চারবার লোডশেডিং হয়েছে। এ সময় ১০ মিনিট থেকে আধা ঘণ্টা পর্যন্ত লোডশেডিং স্থায়ী হয়েছে। রংপুর বিভাগের আট জেলায় বিদ্যুতের গড় চাহিদা ৯০০ মেগাওয়াট। বিদ্যুৎ পাওয়া যাচ্ছে ৪৫০ মেগাওয়াট। এলাকাভেদে লোডশেডিংয়ের তালিকা রক্ষা করা সম্ভব হয়ে উঠছে না।

গতকাল নওগাঁ পল্লী সমিতি-১ ও সমিতি-২-এর অধীনে জেলার অধিকাংশ এলাকায় চার থেকে পাঁচ ঘণ্টা পর্যন্ত লোডশেডিং হয়েছে। তবে নওগাঁ পৌরসভাসহ শহর এলাকায় নিয়ম মেনে লোডশেডিং করা হয়েছে। নওগাঁ জেলায় আরইবির ৭ লাখ ৮৫ হাজার গ্রাহকের জন্য সর্বোচ্চ ১৫২ মেগাওয়াট বিদ্যুতের চাহিদার বিপরীতে পাওয়া যাচ্ছে ৭০ থেকে ৭৫ মেগাওয়াট।

লোডশেডিংয়ের কারণে নওগাঁর কৃষকেরা আমন ধান চাষ নিয়ে শঙ্কিত হয়ে পড়েছেন। বরেন্দ্র উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (বিএমডিএ) বিদ্যুৎ চালিত গভীর নলকূপগুলো (ডিপ টিউবওয়েল) বন্ধ থাকায় জমিতে সেচ দেওয়া যাচ্ছে না। নওগাঁ পল্লী সমিতি-১-এর মহাব্যবস্থাপক রবিউল ইসলাম বলেন, লোডশেডিংয়ের রুটিন বাস্তবায়ন হচ্ছে না। সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত তিন থেকে চার ঘণ্টা করে লোডশেডিং হয়েছে বিভিন্ন ফিডারে। তবে বরিশাল বিভাগের পাঁচ জেলায় লোডশেডিং করতে হয়নি। এ অঞ্চলে চাহিদার চেয়ে বেশি বিদ্যুৎ উৎপাদন সক্ষমতা আছে স্থানীয় পর্যায়ে।

রুটিনের বাইরে লোডশেডিং

বিজ্ঞাপন




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই সম্পর্কিত আরও
Share via
Copy link
© ২০২৩- সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । হক কথা ২৪.নেট
Theme Designed BY Kh Raad ( Frilix Group )
Share via
Copy link