1. faysalislam405@gmail.com : ফয়সাল ইসলাম : ফয়সাল ইসলাম
  2. tajul.islam.jalaly@gmail.com : তাজুল ইসলাম জালালি : তাজুল ইসলাম জালালি
  3. marufshakhawat549@gmail.com : মারুফ হোসেন : মারুফ হোসেন
  4. najmulnayeem5@gmail.com : নাজমুল নাঈম : নাজমুল নাঈম
  5. rj.black.privateboy@gmail.com : rjblack :
  6. saddam.samad.24@gmail.com : সাদ্দাম হোসাইন : সাদ্দাম হোসাইন
  7. samirahmehd1997@gmail.com : Samir Ahmed : Samir Ahmed
মঙ্গলবার, ২২ জুন ২০২১, ০১:৫৪ অপরাহ্ন

দ্রুতই বাড়ছে শিশু শ্রমের সংখ্যা

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশিতঃ শুক্রবার, ১১ জুন, ২০২১
  • ২০ বার পড়া হয়েছে
child-labor

গত দুই দশকে বিশ্বে প্রথমবারের মতো শিশুশ্রম বেড়েই চলছে। একইসাথে আরও লাখ লাখ শিশুকে করোনা মহামারি একই ভাগ্যের দিকে ঠেলে দিতে পারে। গতকাল বৃহস্পতিবার (১০ জুন) জাতিসংঘের আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা (আইএলও) ও শিশুবিষয়ক সংস্থা ইউনিসেফ দ্বারা যৌথভাবে প্রকাশিত চাইল্ড লেবার: গ্লোবাল এস্টিমেটস ২০২০, ট্রেন্ডস অ্যান্ড দ্য রোড ফরোয়ার্ড’ শীর্ষক প্রতিবেদনটিতে বেরিয়ে আসে এমনই চাঞ্চল্যকর সব তথ্য।

প্রতিবেদনটিতে দেখা যায়, ২০১৬ থেকে ২০১৯ সাল বিগত এই চার বছরে শিশু শ্রমিকের তালিকায় নতুন করে ৮৪ লাখ নাম যুক্ত হয়েছে, যা গত বিশ বছরে সর্বোচ্চ। এতে ২০২০ সালের প্রথম দিকে বিশ্বে শিশু শ্রমিকের সংখ্যা দাঁড়ায় ১৬ কোটি। এবং আগামী ২ বছরে আরও পাঁচ কোটি শিশু শ্রমিক বাড়তে পারে।

বিজ্ঞাপন




প্রতি চার বছর পর পর এই প্রতিবেদনটি প্রকাশিত হয়। এবারের প্রতিবেদনটিতে বলা হয় বিশ্বে মোট শিশু শ্রমিকদের প্রায় অর্ধেকেরই বয়স ৫ থেকে ১১ বছর। এবং বেশিরভাগই ছেলে শিশু। ২০২০ সাল পর্যন্ত ১৬ কোটি শিশু শ্রমিকের মধ্যে প্রায় ১০ কোটি-ই ছেলে।

প্রতিবেদন থেকে আরও জানা যায়, ২০০০ থেকে ২০১৬ সালের মধ্যে বিশ্বে শিশু শ্রমিকের তালিকায় যুক্ত হয়েছে আরও ৯ কোটি ৪০ লাখ শিশু। এরপর থেকেই মূলত বাড়তে থাকে এ সংখ্যা এবং মহামারির আগ থেকেই এ সংখ্যা ‍ঊর্ধ্বমুখী।

জাতিসংঘ বলছে, করোনা ভাইরাস মহামারি ও লকডাউনের প্রভাবে সৃষ্ট অর্থনৈতিক সংকট গত এক বছরে আরও কোটিখানেক শিশুকে ঠেলে দিয়েছে একই দুর্ভাগ্যের দিকে। করোনা মহামারির শুরুর দিকে বিশ্বে প্রতি ১০ শিশুর একজন কাজে যোগ দিতে বাধ্য হয়েছে। এ চিত্র সবচেয়ে ভয়াবহ ভাবে পরিলক্ষিত হয় আফ্রিকার সাব-সাহারা অঞ্চলে।

বিজ্ঞাপন




জাতিসংঘ আরও জানায়, আগের তুলনায় প্রতিবছর নতুন যোগ দেওয়া শিশু শ্রমিকের হার বদলায়নি; বরং ২০১৬ সালের হারই এখনো বিদ্যমান। কিন্তু বৈশ্বিক জনসংখ্যা বেড়েছে বলে হার একই থাকলেও নতুন শিশু শ্রমিকের সংখ্যা নিঃসন্দেহে বেড়েছে।

ইউনিসেফের প্রধান হেনরিয়েত্তা ফোর বলেন, করোনা ভাইরাস মহামারি আমাদের অনেক পেছনে ঠেলে দিয়েছে এবং শিশুশ্রম বন্ধের লড়াইয়ে আমরা হারতে বসেছি। এ পরিস্থিতিতে অনেক পরিবারকে বাধ্য হয়ে সন্তানদের পড়াশোনা বন্ধ করে কাজে পাঠানোর কঠিন সিদ্ধান্ত নিতে হচ্ছে।

বিজ্ঞাপন





শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

এই সম্পর্কিত আরও
© ২০২১- সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । হক কথা ২৪.নেট
Theme Designed BY Kh Raad ( Frilix Group )